কোভিড সংকটের ফ্রন্টলাইন : শ্মশান ও গোরস্থানের কর্মীবৃন্দ

সরকারি মতে, ভারতে প্রতিদিন কোভিডে আক্রান্ত ৪০০০ এর-ও বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিষেবার অভাবে। যাঁরা এই মৃতদের ধার্মিক ও সামাজিক রীতি অনুসারে শেষকৃত্যের দায়িত্বে আছেন, তাঁদের উপযুক্ত ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষামূলক উপকরণ বা PPE পরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। PPE এর মধ্যে দস্তানা, ফেস-শিল্ড, চক্ষু রক্ষার জন্য গগলস, মেডিক্যাল মুখোশ ও আঁটোসাঁটো জুতো থাকা অবশ্যই প্রয়োজন। মৃতদেহ বহন করার মাধ্যমে কোভিড সংক্রমণের সম্ভাবনা কলেরার মতো রোগের তুলনায় কম। কিন্তু মৃতদেহের শারীরিক তরল বা নিঃসরণের সংস্পর্শে এলে, কোভিড সংক্রমণ হতে পারে। কোভিডে মৃতদের ফুসফুস ও অন্যান্য অঙ্গে জীবিত ও সংক্রমণকারী ভাইরাস থাকতে পারে। মৃত্যু সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে, শ্মশান ও গোরস্থানের কর্মীরা দিনরাত এক করে কাজ করে চলেছেন। অধিকাংশ সময়েই তাঁদের কাছে কোভিড ভ্যাকসিন, কোভিড সংক্রমণ পরীক্ষা, উপযুক্ত PPE, আর্থিক সহায়তা, পর্যাপ্ত খাদ্য ও মানসিক স্বাস্থ্য পরিষেবার সুবিধা থাকে না। এই ফ্রন্টলাইন কর্মীদের অনেকেই ঐতিহাসিকভাবে প্রান্তিক ও নিপীড়িত সম্প্রদায়ের সদস্য, যাঁরা আজও প্রাতিষ্ঠানিক জাতভেদের শিকার। আজ এই স্বাস্থ্য সংকটের সময় আমাদের উচিত এই মানুষগুলির ফ্রন্টলাইনে কাজের স্বীকৃতি দেওয়া এবং তাঁদের অবস্থার উন্নতিতে প্রচেষ্ট হওয়া।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s